ষাইট্টা বটগাছ | ভ্রমণকাল

ষাইট্টা বটগাছ

shaitta-banyan-tree
ঢাকার জেলার ধামরাই উপজেলার যাবদপুর ইউনিয়নের একটি গ্রামের নাম ষাইট্টা। প্রায় ৫০০ বছরের রহস্যঘেরা ধামরাইরের ষাইট্টা বটগাছ। ধানতারা গ্রামে দেবীদাস বংশের পূর্বপুরুষ তাদের জমির ওপর একটি বট ও একটি পাকুড় গাছ রোপণ করেছিলেন। সেই সময়ে এরকম ধর্মীয় অনুভূতিতে দাস বংশের পূর্বপুরুষ বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে বিবাহের উপকরণসহ ব্রাহ্মণ দ্বারা মন্ত্র পাঠের মাধ্যমে বট ও পাকুড় গাছের বিবাহ সম্পন্ন করেন। গাছ দুটি বর্তমানে অসংখ্য ডালের মাধ্যমে অসংখ্য শিকড় ছেড়ে দিয়ে ৫ বিঘা জমি দখল করে আছে। এছাড়াও গাছের নিচে একপাশে একটি মন্দির চোখে পরবে। যেখানে বিভিন্ন পূজা পার্বণে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এছাড়া প্রতি বছর পহেলা বৈশাখে গাছের নিচে মেলা/অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।

এখানে আসার পথে বেশ দূর থেকেই দৃষ্টি আকর্ষণ করবে এই গাছ। বিশাল জায়গাজুড়ে দাঁড়িয়ে থাকা এই গাছ ক্ষণিকের মধ্যেই নিজ সৌন্দর্যে আপনার মন কেড়ে নিতে পারে। গাছটি নিয়ে স্থানীয়ভাবে বেশ কিছু কথা প্রচলিত আছে! গাছের ডাল কেউ কাটে না, যে কাটবে সে অসুস্থ হয়ে যায়! ক্ষেত্রবিশেষে মারা যাওয়ার কথাও প্রচলিত আছে! অসুস্থ হলে তখন এই মন্দিরে পূজা দেয়া ছাড়া নাকি সুস্থ হওয়া যায় না।

এখানকার ঠান্ডা বাতাস, স্নিগ্ধ আবহাওয়া আর পাখপাখালির ডাক আর শান্ত সবুজ ভাব মনকে পরিপূর্ন করে দিতে যথেষ্ট। শহুরে একঘেয়েমি দূর করতে এই জায়গা হতে পারে অনন্য, যার রেশ রয়ে যাবে বেশ কিছুদিন।

ষাইট্টা বটগাছ কিভাবে যাবেন

রুট ১: ঢাকার গাবতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে যেতে চাইলে মানিকগঞ্জগামী বাসে চড়ে ঢুলিভিটা নামক স্থানে নামতে হবে ভাড়া পরবে ৭০ টাকা থেকে ৮০ টাকা। তারপর ঢুলিভিটা থেকে ১০টাকা অটো ভাড়ায় ধামরাই বাজারে এসে সেখান থকে অটোতে চরে যাদবপুর ইউনিয়েনর ষাইট্টা গ্রামে যেতে পারবেন। অটো রিজার্ভ নিবে ২৫০ টাকা থেকে ৩০০টাকার মধ্যে।

রুট ২: এছাড়াও ঢাকার গাবতলী বাসস্ট্যাড থেকে জনসেবা বা এস.বি লিংক মিনিবাসে চরে মহিষাশী বাজারে চলে আসুন। ভাড়া পরবে জনপ্রতি ৫০ টাকা থেকে ৭০ টাকা। মহিষাশী বাজার থেকে কুশারা আসতে ১০ টাকা সিএনজি ভাড়া লাগবে। আর কুশরা থেকে ষাইট্টা গ্রামে যেতে ২০ থেকে ২৫ টাকা ভাড়া লাগবে।

রুট ৩: সাভারের নবীনগর থেকে লেগুনা করে সরাসরি ধামরাই এর ধানতারা বাজার এসে এখান থেকে অটো নিয়ে আসা যাবে বটগাছ দেখতে।

রুট ৪: সরাসরি ষাইট্টা বটগাছ যেতে চাইলে গুলিস্থান থেকে ধামরাইগামী বাসে চড়ে ধামরাই পৌছে সেখান থেকে অটোতে করে ষাইট্টা যাওয়া যায়।

এছাড়া ষাইট্টা বটগাছ দেখতে যাওয়ার আগেই পরে কাকরান কুমারপাড়া, এটি আগে দেখে নেয়া ভালো। ধামরাই বাজার থেকে রিকশা বা অটো নিয়ে এখানে আসা যায়।

ভ্রমণকালে পরামর্শ

⦿ ষাইট্টা বটগাছের ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না। (পাতা ছেড়া ঢাল বাঙ্গা)
⦿ স্থানীয় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা এই গাছ দু’টিকে দেবতা মনে করেন।
⦿ আরো ঘুরে দেখতে পারেন ধামরাইয়ের হাজার বছরের ঐতিহ্যবাহী কাসা পিতলের শিল্প এলাকা ও কাকরান কুমারপাড়া,

আরো দেখুন

দৃষ্টি আকর্ষণ: আমাদের পর্যটন স্পট গুলো আমাদের দেশের পরিচয় বহন করে এবং এইসব পর্যটন স্পট গুলো আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন। আর ভ্রমনে গেলে কোথাও ময়লা ফেলবেন না। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।