নভোথিয়েটার | ভ্রমণকাল

নভোথিয়েটার

novotheatre-dhaka, bangabandhu sheikh mujibur rahman novo theatre;vasani novo theater, ভ্রমনকাল,নভোথিয়েটার,টিকেট মূল্য, Vromon
আকাশ নিয়ে মানুষের ভাবনা সেই প্রাচীনকাল থেকে। তখন মানুষ খালি চোখে আকাশ দেখত। আকাশের ভেতর তারা, খুঁজে পেয়েছিল অনেক পৌরনিক চরিত্র। আজ আমরা জানি পৃথিবী সূর্যের একটি গ্রহ। বুধ আব শুক্রের মতোই একটি গ্রহ। এই গ্রহগুলো ঘুরছে সূর্যকে কেন্দ্র করে । সূর্যের এই পরিবারকে আমরা বলি সৌরজগৎ। মহাবিশ্বে এমন সৌরজগৎ মাত্র একটিই নয়। অনেক, কোটি কোটি। এসব সত্য আবিষ্কার করতে গিয়ে সর্বস্ব উৎসর্গ করেছেন অনুসন্ধানী মানুষেরা যুগ যুগ ধরে। মহাকাশ সম্পর্কে  আমাদের অনেকেরই ধারনা এখনো কুসংস্কারাচ্ছন্ন, ধোয়াটে।মহাবিশ্ব সম্পর্কে মানুষকে ভালভাবে জানাতে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার তেজগাঁও বিজয় সরণীর মোড়ে নির্মাণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান নভোথিয়েটার (Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman Novotheater)। পূর্বে এই নভোথিয়েটারটি ভাষানী নভোথিয়েটার নামে পরিচিত ছিল।

ঢাকার বিজয় সরণিতে সামরিক জাদুঘরের পাশেই নির্মান করা হয়েছে এই নভোথিয়েটার। শো  শুরু হওয়ার এক ঘন্টা আগে থেকে টিকেট পাওয়া যায় টিকেট কাউন্টারে। একজন একসঙ্গে সর্বোচ্চ  তিনটি টিকেট নিতে পারবেন। প্রতিদিন শো হবে চারটা। সকাল ১১টায়, দুপুর ১টায় বিকেল ৩টায় ও ৫টায়। শুক্রবার রুটিন খানিকটা বদলায়। সকাল ১০টায় শো হবে একটা। এর পর বিকেল ৩টা, ৫টা, ও ৭টায় । বুধাবর সপ্তাহিক বন্ধ থাকে।

নভোথিয়েটারের ভেতর বাহিরে কি রয়েছে

একশো তেইশ কোটি টাকা বাজেটে তৈরি করা নভোথিয়েটারের মোট আয়তন ৫.৪ একর। সামনে সিড়ির জন্য ফাকা জায়গা। ইট আর কংক্রিট দিয়েএ সাজানো হয়েছে নভোথিয়েটারের চারপাশ। ঢোকার মুখেই রয়েছে দু'টি সিম্বল। একটি ডানা মেলা বকের, অন্যটিব আর্কিটেক্ট সিম্বল। নভোথিয়েটারের গঠনশৈলী বেশ নান্দনিক, জ্যামিতিক প্যাটার্নে বানানো। মাঝখানে মেটালিক নীল রঙের ডোম। বাইরে থেকে গোল গম্বুজের মতো দেখায়। নভোথিয়েটারের ডিজাইন করেছেন স্থপতি  আলী ইমাম। পুরো নভোথিয়েটার শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত করা হয়েছে। টিকেট নিয়ে ভেতরে ঢুকলে চোখে পড়বে এক্সিবিশন হল। মোট চারটি লেভেল সাজানো হয়েছে হলটি। হল অফ দি ফেম নামে একটি আর্ট গ্যালারি আছে বাঁ দিকে। গ্যালারিতে রয়েছে বিশ্বনন্দিত বিজ্ঞানীদের আবক্ষ মূর্তি। এক্সিবিশন হলে রয়েছে একটি ত্রিমাত্রিক মডেল সোলার সিস্টেম, সূর্য, চাঁদ আর পৃথিবীর একটি মডেল, স্বচ্ছ খ-গোলক, সৌরজগত, তারাদের আকার, মহাকাশে তারাদের অবস্থান জানতে স্টার ফাইন্ডার, আর আছে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের অনেকগুলো পোস্টার।

নভােথিয়েটারের ঠিক মাঝখানটাতে তৈরি রয়েছে থিয়েটার হল। এটি মূলত একটি এলুমিনিয়ামে বানানো ডোম। ডোমের ভেতরে ঢুকলে আপনার মনে হবে, আপনি ঢুকে পড়েছেন আরেকটি ছোট্ট পৃথিবীতে। কারন এটি বানানো হয়েছে একটি ভূগোলকের আগলে, যা সামনে দিকে হেলে আছে। ডোমের ঠিক অর্ধেক জুড়ে আছে ২৩ মিটার ব্যাসের সুবিশাল থ্রি ডাইমেনশনাল পর্দা। পর্দার নিচে নীল রঙ্গের চেয়ার দিয়ে পুরো অডিয়েন্স সাজানো। চেয়ার গুলো পেছনে হেলানো যায়। এতে করে পুরো পর্দাটাই আপনি ভাল করে দেখতে পাবেন। এখানকার মোট আসন স্ংখ্যা ২৭৫ টি। বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার কারা হয়েছে এই থিয়েটারে। পর্দায় ছবি ফুটিয়ে তোলার জন্য আছে ৩২টি অতি শক্তিশালী প্রজেক্টর। ছবিতে স্পেশাল ইফেক্টের ব্যবহার রয়ছে। 

জীবন্ত শব্দের জন্য আছে ১০ হাজার ওয়াটের সারাউন্ড সাউন্ড সিস্টেম। পর্দায় একসঙ্গে দেখা যাবে ২৫ হাজারের বেশি নক্ষত্র। শো শুরু হবার আগে সব আলো নিভে যাবে। আকাশের মতো পর্দায় ধীরে ধীরে ভেসে উঠবে গোধূলিবেলার ঢাকা শহর। যেখানে সূর্য নেমে যাচ্ছে ক্রমশ, হারিয়ে যাচ্ছে  আলাে। কিছুক্ষন পর আপনি মাথার  উপরে দেখবেন মেঘমুক্ত নির্মল কৃষ্ঞপক্ষ রাতের নক্ষত্রখচিত আকাশ। এ আকাশ দেখে আপনি অবাক হয়ে যেতে পারেন। সৌর জগতের একটা বেশ গোছানো পরিচয় পাবেন আপনি। একজন ভাষ্যকর বাংলায় আপনাকে বিষয়গুলাে ব্যাখা করবেন। আপনি আকাশের ভেতর দিয়ে তারাদের মধ্যে উড়ে যাওয়ার অভিজ্ঞতা পাবেন।

নভোথিয়েটার এদেশের মানুষের জন্য এক নতুন অভিজ্ঞতা। এতো আধুনিক কোন হল এর আগে বাংলাদেশে নির্মিত হয়নি। বিশ্বের প্রায় সব দেশেই এরকম নভোথিয়েটার রয়েছে। আমাদের পাশের দেশ ভারতে আছে মোট ২৯টি। এর মধ্যে চারটি  আছে পশ্চিমবঙ্গে। পাকিস্তানেও তিনটি নভোথিয়েটার আছে। এই নভোথিয়েটারের মধ্য দিয়ে  আমাদের একটি বড় শূ্ন্যতা পূরণ হলো। 

কোন এক দিনে পরিবারের সবাইকে সঙ্গে নিয়ে চলে আসুন এই নভোথিয়েটারে, সৌর জগতের অনেক অজানা তথ্যই জানতে পারেবেন এখান থেকে।নভোথিয়েটারের 

নভোথিয়েটারের সময়সূচী

প্রদর্শনীর সময়
⦿ শনি ও মঙ্গল ও বৃহস্পপ্রতি বার - সকাল ১১.০০ টায়, দুপুর ১.০০ টায়, বিকাল ৩.০০ টায়, বিকেল ৫.০০ টায়  ও ৭.০০ টায়। 
⦿ শুক্রবার - সকাল ১১.০০ টায়, বিকেল ৩.০০ টায়, বিকেল ৫.০০ টায়, সন্ধ্যা ৭.০০ টায়
⦿ বুধাবর সপ্তাহিক বন্ধ থাকে।

নভোথিয়েটার টিকেট মূল্য

⦿ প্যানেটেরিয়াম প্রদর্শনীর টিকেটের মূল্য ১০০ টাকা।
⦿ ২ বছরের নিচে বাচ্চাদের কোন টিকিটের প্রয়োজন নাই।
⦿ ৫ডি মুভি থিয়েটারের প্রতি টিকেটের মূল্য ৫০ টাকা।
⦿ ডিজিটাল ও সায়েন্টিফিক এক্সিবিটস গ্যালারির প্রতি টিকেট মূল্য ১০০ টাকা
⦿ রাইড সিমুলেটরের টিকেট মূল্য ২০ টাকা
টেলিটক মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে নভোথিয়েটার যাওয়ার তিন দিন আগেই অগ্রীম টিকেট ক্রয় করতে পারবেন, নভোথিয়েটারের টিকেট অনলাইনে সংগ্রহের নিয়মাবলী জানতে ভিজিট করুনshorturl.at/jwBLN

নভোথিয়েটার কোথায় অবস্থিত

রাজধানী ঢাকার তেজগাঁও বিজয় সরণীতে সামরিক জাদুঘরের পাশেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার অবস্থিত. যা এক সময় ভাষানী নভোথিয়েটার নামে পরিচিত ছিল।

নভোথিয়েটার কিভাবে যাবেন

রাজধানীর ঢাকা শহরের যে কোন জায়গা থেকে বাস, ্ট্যাক্সি অথবা সি্‌এনজিতে চরে নভোথিয়েটার আসতে পারবেন। গুলিস্থান থেকে বাসে বিজয় স্বরণী যেতে ভাড়া পরবে ২৫ টাকা।

যোগাযোগ

বিজয় স্বরণী, তেজগাঁও, ঢাকা
এর পশ্চিম পাশে সামরিক জাদুঘর রয়েছে।
ফোন : 9139577, 9138878, 8110155, 8110184
ওয়েব সাইট  : www.novotheatre.gov.bd

ভ্রমণকালে পরামর্শ

⦿ নভোথিয়েটার বুধবার বন্ধ থাকে।
⦿ বাচ্ছাদের ভ্রমণের মজার জায়গা, সৌর জগত সম্পকে অনেক কিছু জানতে পারবে।
⦿ অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাষরিক শিক্ষা সফরে ছোট বাচ্চাদের নিয়ে আসে এই নভোথিয়েটারে।
⦿ পরিবেশ নষ্ট করে এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন।
_______________________

নভোথিয়েটার সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

নভোথিয়েটার কি বার বন্ধ থাকে ?
উত্তর: বুধাবার বন্ধ থাকে।

নভোথিয়েটার শো এর সময়সূচী ?
উত্তর:  শনি ও মঙ্গল ও বৃহস্পপ্রতি বার - সকাল ১১.০০ টায়, দুপুর ১.০০ টায়, বিকাল ৩.০০ টায়, বিকেল ৫.০০ টায়  ও ৭.০০ টায়। শুক্রবার - সকাল ১১.০০ টায়, বিকেল ৩.০০ টায়, বিকেল ৫.০০ টায়, সন্ধ্যা ৭.০০ টায়।

নভোথিয়েটারের ভিতর খাবার নিয়ে প্রবেশ করা যাবে ?
উত্তর: না

নভোথিয়েটার কত সালে উদ্বোধন করা হয় ?
উত্তর: ২৩ সেপ্টম্বর ২০০৩ সালে
______________________

 আরো দেখুন

দৃষ্টি আকর্ষণ: আমাদের পর্যটন স্পট গুলো আমাদের দেশের পরিচয় বহন করে এবং এইসব পর্যটন স্পট গুলো আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন। আর ভ্রমনে গেলে কোথাও ময়লা ফেলবেন না। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।