আহসান মঞ্জিল | ভ্রমণকাল

আহসান মঞ্জিল

ahsan manzil, museum, ahsan manzil off day, আহসান মঞ্জিল, ahsan manzil opening time, ভ্রমণকাল, HD
আহসান মঞ্জিল দেশের অন্যতম গুরুত্বপূণ স্থাপত্য নিদর্শন। এই ঐতিহাসিক আহসান মঞ্জিল বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে কুমারটোলিতে অবস্থিত। ঢাকার নবাবদের প্রাসাদ বা আবাসিক ভবন ও কাছারি হিসাবে ব্যবহৃত হতো। ১৯৯২ সালে এটিকে যাদুঘরে পরিণত করা হয়। কথিত আছে, মুগল আমলে এখানে জামালপুর পরগনার জমিদার শেখ এনায়েতউল্লাহর রঙমহল ছিল এটি। পরে তার পুত্র মতিউল্লাহর নিকট থেকে রঙমহলটি ফরাসিরা ক্রয় করে এখানে একটি বাণিজ্য কুঠি স্থাপন করে।

১৮৩০ সালে খাজা আলীমুল্লাহ ফরাসিদের নিকট থেকে কুঠিবাড়ীটি কিনে নেন এবং প্রয়োজনীয় সংস্কার সাধন করে এটি নিজের বাসভবনে পরিণত করেন। এ বাসভবনকে কেন্দ্র করে খাজা আব্দুলগনি মার্টিন অ্যান্ড কোম্পানি নামক একটি ইউরোপীয় নিমাণ ও প্রকৌশলী প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে একটি মাস্টার প্ল্যান তৈরি করান যার প্রধান ইমারত ছিল আহসান মঞ্জিল। ১৮৫৯ সালে আহসান মঞ্জিলের নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে ১৮৭২ সালে সমাপ্ত হয়।

আব্দুল গিন তার পুত্র খাজা আহসানুল্লাহর নামানুসারে ভবন এর নামকরণ করেন আহসান মঞ্জিল। এই যুগে নবনির্মিত প্রাসাদ ভবনটি রঙমহল এবং পূর্বেকার ভবনটি অন্দর মহল নামে পরিচিত ছিল। খাজা সলিমুল্লাহ তার যাবতীয় রাজনৈতিকক কর্মকান্ড এ প্রাসাদ থেকেই পরিচালনা করেছেন। নিখিল ভারত মুসলিম লীগের সূতিকার হিসেবে আহসান মঞ্জিল ইতিহাসের অঙ্গ হয়ে আছে।

আহসান মঞ্জিল পরিদর্শনের সময়সূচী

গ্রীষ্মকালীন সময়সূচী: এপ্রিল-সেপ্টেম্বর মাসে
শনিবার থেকে বুধবার খোলা থাকে সকাল ১০.৩০ টা থেকে বিকাল ৫.৩০ টা পর্যন্ত।
শুক্রবার- বিকেল ৩.০০ টা থেকে সন্ধ্যা ৭.৩০ টা পর্যন্ত।

শীতকালীন সময়সূচী:
অক্টোবর –মার্চ মাসে
শনিবার থেকে বুধবার খোলা থাকে সকাল ৯.৩০ টা থেকে বিকাল ৪.৩০ টা পর্যন্ত।
শুক্রবার – দুপুর ২.৩০ টা থেকে সন্ধ্যা ৭.৩০ টা পর্যন্ত।

বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক বন্ধ থাকে
এছাড়াও অন্যান্য সরকারি ছুটির দিন জাদুঘর বন্ধ থাকে।

আহসান মঞ্জিল প্রবেশ ফি

টিকেটের মূল্য তালিকা
প্রাপ্ত বয়স্ক বাংলাদেশি দর্শক = ৫ টাকা জনপ্রতি, অপ্রাপ্ত বয়স্ক বাংলাদেশি শিশু দর্শক (১২ বছরের নিচে) = ২ টাকা জনপ্রতি, সার্কভুক্ত দেশীয় দর্শক = ৫ টাকা জনপ্রতি, অন্যান্য বিদেশি দর্শক = ৭৫ টাকা জনপ্রতি, উল্লেখ্য যে, প্রতিবন্ধি দর্শকদের জন্য কোন টিকিটের প্রয়োজন হয় না ও পূর্ব থেকে আবেদনের ভিত্তিতে ছাত্র-ছাত্রীদের বিনামূল্যে জাদুঘর দেখতে দেয়া হয়। আহসান মঞ্জিল জাদুঘর ছাত্র-ছাত্রীদের বিনা টিকিটে প্রবেশ করতে দেয়া হয়ে থাকে। অগ্রিম টিকিটের কোন ব্যবস্থা নেই। তবে উল্লিখিত দিনগুলোতে আহসান মঞ্জিল বন্ধ হওয়ার ৩০ মিনিট আগ পর্যন্ত টিকেট সংগ্রহ করা যায়।

আহসান মঞ্জিল কিভাবে যাবেন

আহসান মঞ্জিল যাবার সবচেয়ে সহজ রুট হলো সদরঘাট। ঢাকার যেকোনো প্রান্ত থেকে সদরঘাটে সড়ক পথে বাসে করে যাওয়া যায়। এরপর সদরঘাট আপনি ২০ টাকা রিকশা ভাড়ায় আহসান মঞ্জিল যেতে পারবেন। তবে সদরঘাট থেকে আহসান মঞ্জিল খুবই অল্প দুরত্বে হওয়ায় পায়ে হেটে যাওয়ায় বুদ্ধিমানের কাজ হবে, কারন সরু রাস্তায় সাধারনত প্রচুর জ্যাম হয়ে থাকে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পেছনের রাস্তা দিয়ে একটুখানি হেটে গেলেই আপনি  আহসান মঞ্জিল পৌঁছে যাবেন।

ভ্রমণকালে পরামর্শ

⦿ বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে আহসান মঞ্জিল র্দীঘ দিন বন্ধ ছিল, এখন খোলা আছে।
⦿ আহসান মঞ্জিল যাওয়ার আগে অনলাইনে টিকেট কেটে নিতে পারেন।
⦿ যাওয়ার সময় ঢাকার ঐতহ্যবাহী ঘোড়ার গাড়িতে করে যেতে পারেন।
⦿ আহসান মঞ্জিল যাওয়ার জন্য গুলিস্থানের গোলাপশাহ এর মাজারের সামনে থেকে ঘোড়ার গাড়িতে করে সদরঘাট যাবেন এর পর রিক্সাযোগে আহসান মঞ্জিল যেতে পারবেন।

আশে পাশের দর্শনীয় স্থান

 রূপলাল হাউজ
 বড়কাটরা
 ছোট কাটরা

দৃষ্টি আকর্ষণ: আমাদের পর্যটন স্পট গুলো আমাদের দেশের পরিচয় বহন করে এবং এইসব পর্যটন স্পট গুলো আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন। আর ভ্রমনে গেলে কোথাও ময়লা ফেলবেন না। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।